স্বগতোক্তিতে স্বাগতম! ব্লগটি মূলত ওপেন সোর্স, বইপত্র আর অন্যান্য বিষয় নিয়ে। কোনো মতামত থাকলে কমেন্ট কিংবা ই-মেইল করতে ভুলবেন না।

শিক্ষণ, পরিবর্তন ও কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা


হ্যাঁ, এটা ঠিক যে মানুষ মূলত নতুনত্ব চায়। কোনো কোনো নতুনত্ব আমাদের মন এমনভাবে দখল করে যে তাতে আমরা চমৎকৃত হই। এই নতুনত্বকে বলি সুন্দর, একে ভালোবাসি। কিন্তু কোনো নতুনত্বই ধ্রুব নয়, একদিন এই নতুন জিনিসটাই পুরনো হয়। ফলে সে তার আকর্ষণ হারায়। এক্ষেত্রে মানুষ ও অপরাপর প্রাণীদের বুদ্ধিমত্তা কিন্তু নতুন কিছু সম্ভাবনা/অনিশ্চিয়তা জাগায়। প্রাণীরা তাদের ইন্দ্রিয় থেকে পাওয়া তথ্যে প্রকৃতি হতে নতুন নতুন প্যাটার্ন আবিষ্কার করে, যাকে আমরা শিক্ষা বলি। আশেপাশের সবকিছুকে মানুষের ইন্দ্রিয় একদিনে ছেঁকে ফেলতে পারে না। ফলে সে একটু একটু তথ্য আহরণ করে, একটু একটু শেখে। ফলে সে প্রতিদিনই প্রাপ্ত শিক্ষার বদৌলতে পাল্টে যায়।   বংশগত বা, পরিবেশগত কারণে একেক মানুষ/প্রাণীর শিক্ষার মান/পরিমাণ ভিন্ন হয়। এতেও জারি হয় আরেক দফা অনিশ্চয়তা। তার শিক্ষা পরিমাপের সামর্থ্য আমরা হারাই। মানুষের শিক্ষা মানুষকে ইলেকট্রনিক ম্যাটেরিয়ালগুলোতে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রয়োগ করতে শেখাচ্ছে। যেন যন্ত্রগুলো বুদ্ধিমান হয়, মানুষের দেখাশোনা ছাড়াই চলতে পারে। মানুষের মতই শিখতে পারে। আর কারো কারো মতে, মানুষেরা একদিন যন্ত্রকে রোমান্টিক সঙ্গী হিসেবে বেছে নেবে। কারণ, যন্ত্র আরো স্মার্টলি মানুষের সাইকোলজি/চাহিদা বুঝতে পারবে। আর এখানেই ঢুকে ফ্যাসাদ। যে যন্ত্র সবসময়ই আশেপাশের পরিবেশ থেকে শিখে সে স্বভাবতই পরিবর্তনশীল (যেমনটা আগে বললাম)।   এতে করে দেখা যাবে, কোনো যন্ত্রই তার মানুষ-সঙ্গীকে নিশ্চিয়তাপূর্ণ সঙ্গ দিতে পারবে না। কারণ, সে যেহেতু প্রতিনিয়ত শিখে ও স্বয়ংক্রিয় তাই সে তার সঙ্গীকে ভিন্নভাবে ট্রিট করবে নতুন নতুন ধারণা অর্জনের পর। মানুষের নিঃসঙ্গতা তাই চিরন্তন। একটা উপায়ই শুধু খোলা থাকে তখন কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাসম্পন্ন যন্ত্রের ক্ষেত্রে। যন্ত্রকে স্বয়ংক্রিয়তা না দেয়া ও তার কৃত্রিম শিক্ষণ থামিয়ে দেয়া। তখন এটাও মনে রাখতে হবে, এই যন্ত্রটির নতুনত্ব প্রদর্শনের ক্ষমতা এতে কমে যেতে যেতে একপর্যায়ে থেমে যাবে। তখন এই বোরিং যন্ত্রটাকে নতুনভাবে প্রোগ্রাম করতে হবে। নাকি সেই চরম উন্নত সভ্যতায় এমন কিছু মানুষেরও জন্ম হবে যারা তাদের যন্ত্রসঙ্গীকে ভুলতে না পারা ও তাদের পরিবর্তন করার ঝুঁকি না নেয়া এই দুটোর কোনোটাই বেছে না নিতে পেরে স্বেচ্ছামৃত্যুর পথে যাবে?          

এই লেখাটি Creative Commons এর CC BY 4.0 CCBY4 এর অধীন। আপনি লেখাটি শর্তসাপেক্ষে পরিবর্তন, পরিবর্ধন করে প্রকাশ করতে পারেন ও চাইলে বাণিজ্যিক কাজে ব্যবহার করতে পারেন। প্রাথমিক শর্ত: আপনাকে অবশ্যই লেখাটি লেখকের নাম সহ প্রকাশ করতে হবে। লেখাটিতে পরিবর্তন আনলে পরিবর্তন আনার কথাটিও খোলাখুলি বলতে হবে। বিস্তারিত দেখুন এখানে